কিভাবে পাতলা দাড়ি ঘন করবেন

কিভাবে পাতলা দাড়ি ঘন করবেন

কৈশোর কাটিয়ে যৌবনের দিকে পা বাড়িয়েছেন কিন্তু গালের উপর দাড়িয়ে ছাপ স্পষ্ট হয়নি। আবার অনেকের দাড়ি আছে কিন্তু পাতলা দাড়িতে ঠিকমতো চোয়াল ঢাকা যাচ্ছেনা এমন সমস্যায় পড়ে বহু পুরুষ।

যাদের হরমোনাল সমস্যা রয়েছে তাদের প্রকৃতো বয়সের অনেক পরে দাড়ি গজায় বা দারি একটু একটু গজিয়ে আর গজায় না এটা হয় মূলত জন্মগত কারণে বা কিছু হরমোনাল সমস্যার জন্য।

সাধারণত ছেলেরা দাড়ি রাখতে খুব পছন্দ করে আর বিভিন্ন রকম স্টাইল করে দাড়ি কেটে তাদের মুখমন্ডল এর সৌন্দর্য বৃদ্ধি করে থাকে। যাদের দাড়ি পাতলা বা স্থানে স্থানে দাড়ি গজায় না তারা খুবই দুশ্চিন্তায় ভোগেন কারণ তারাই স্টাইল করে মুখমণ্ডলের সৌন্দর্য বৃদ্ধি করতে পারেনা

আজকের প্রতিবেদনে এই পাতলা দাড়ি সমাধান নিয়ে কয়েকটি কার্যকরী টিপস দেয়া হবে তো চলুন শুরু করা যাক।

১ : দাড়িকে বড়

দাড়িকে বড় হতে দিন আমরা অনেকেই দারি একটু বড় হলেই সেটাকে কাটা বা ট্রিম করার জন্য ব্যস্ত হয়ে যায়। আমাদের মুখের সব স্থানে দাঁড়িয়ে একই গতিতে বড় হয় না কিছু জায়গায় এক সপ্তাহের ভেতর দাড়ি বড় হয়ে যায় আবার কিছু জায়গায় এক মাসেরও বেশি সময় লেগে যেতে পারে।

সুতরাং তাদের কেউ একটু বড় হওয়ার সুযোগ দিতে হবে তারপর সব হালকা লেবেলে ছেটে রাখতে পারেন।

[ আরো পড়ুন: এই ৪ টি উপায়ে ব্লাকহেড দূর করুন চিরতরে ]

২ : হরমোন

হরমোন প্রোডাক্টসন বাড়ানোর ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালনকারী হরমোন হচ্ছে এন্ড্রোজেন। এটি এক সময় মাথার চুল পড়ে যাওয়ার ক্ষেত্রেও দাই শুধু ঘন দাড়ি নয় তাদের রং এই হরমোন এর উপর নির্ভর করে। অ্যান্ড্রোজেনের অভাবে অনেকেরই দিদি ফ্যাকাশে বা লালচে হয়ে যায়।

সুতরাং কিভাবে আপনার শরীরে এই হরমোনের পরিমাণ বাড়াবেন এটি সাধারণত টেস্টোস্টেরন হরমোন টেস্টোস্টেরন পুরুষের প্রধান হরমোন এটিকে বিভিন্নভাবে বুস্ট করা যায় যেমন নিয়মিত এক্সারসাইজ সবথেকে কার্যকর এবং কোমন উপায় হচ্ছে রেগুলার ব্যায়াম করা।

পেশির গঠন হতে উচ্চতা বারাতে ও দাড়ি গজানোর সহ সকল শারীরিক বৃদ্ধির মূলে রয়েছে নিয়মিত এক্সারসাইজ কারণ এক্সারসাইজের মাধ্যমে সবচেয়ে দ্রুত হরমোন প্রোডাকশন বাড়ে আজ থেকে নিয়মিত এক্সারসাইজ শুরু করে দেখবেন শুধু পাতলা দাড়ি নয় শরীরের সব ক্ষেত্রেই অভাবনীয় পরিবর্তন দেখতে পাবেন।

কিভাবে পাতলা দাড়ি ঘন করবেন

৩ : স্ট্রেস কমান

স্ট্রেস কমান স্ট্রেস কমানোর পেছনে দায়ী হরমোন হচ্ছে কটিসল্ট এই হরমোন টেস্টোস্টেরন হরমোন কেউ বাধাগ্রস্ত করে তাই টেস্টোস্টেরন কে বাধাগ্রস্থ করতে না চাইলে চাপ মুক্ত থাকার চেষ্টা করুন এটি সাধারণত কিডনি থেকে রিলিজ হয় দুশ্চিন্তা চাপ ইত্যাদি বেড়ে গেলেই এই হরমোন রিলিজ হতে থাকে ফলে ফেসিয়াল হেয়ার গ্রোথ বাধাগ্রস্ত হয় তাই দাড়ি নিয়ে দুশ্চিন্তা ও দাড়ি কম হওয়ার একটি কারণ।

৪ : পেঁয়াজের রস

পেঁয়াজের রস মুখের উপর লাগালে দাড়ি বাড়াতে সাহায্য করে পেঁয়াজ এর মধ্যে থাকা সালফার এই কাজ করে থাকে। দাড়ি ঠিকমতো সালফারের শক্তি না পেলে বাড়তে পারে না পেঁয়াজের রসে আছে প্রচুর সালফার এটি রক্ত চলাচল বৃদ্ধি করে আর ত্বকের কোলাজেন উৎপাদন বাড়িয়ে দাঁড়িয়ে আর ঘন করতে সাহায্য করে।

প্রথমে ৩ চামচ পেঁয়াজের রস ২ চামচ সূর্যমুখী বীজের তেল নিন এবার একটি পাত্রে পেঁয়াজের রস আর সূর্যমুখী বীজের তেল নিয়ে ভালো করে মেশান। সূর্যমুখী তেলে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে সালফার এই মিশ্রণটি গালে লাগিয়ে ১৫ মিনিট অপেক্ষা করুন তারপর ঠান্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে নিন এই পদ্ধতি সপ্তাহে তিনদিন করলে খুব তাড়াতাড়ি ঘন দাড়ি বেরিয়ে আসবে।

[আরো পড়ুন উজ্জ্বল ত্বক পেতে হলুদ ফেস প্যাক ]

৫ : আপনার স্টাইল

আপনার স্টাইল খোঁজে বের করুন টেস্টোস্টেরন নিয়ে অনেক আলোচনা করা হয়েছে এবার একটু ভিন্ন টিপস দিয়।

আপাতত আপনার দাড়ি যেমনই হোক না কেন এই দারি ব্যবহার করেই আপনার নিজস্ব স্টাইল বের করুন। খেয়াল করলে দেখবেন সব বড় বড় সেলিব্রিটির ঘন দাঁড়ি আছে তা কিন্তু নয় তবে তাদের প্রত্যেকেরই একটি ইউনিক স্টাইলে আছে।

যেমন ধরুন লিওনার্দো কিংবা আলিজা কে দেখুনা তাদের দাড়ির স্টাইল কিন্তু অন্যরকম। সবার ক্ষেত্রে সব সময় দাড়ি গজানো সম্ভব হয় না। তবে যা আছে তাই দিয়ে ইউনিক স্টাইল ঠিকই খুঁজে বের করা সম্ভব।

সবশেষে বলতে পারি আপনার জন্য এটা লজ্জাজনক কিছু নয় এটা এমন কিছু নয় যে এর জন্য আপনি পৃথিবীর কাছে লজ্জার পাত্র কারণ।

এটা আপনার একটি বৈশিষ্ট্য যে আপনাকে সবার থেকে আলাদা করে রেখেছে তাই এটি নিয়ে দুশ্চিন্তা না করে এটাকে স্টাইলে রূপান্তর করার চেষ্টা করুন। দাড়ি যেমনই হোক না কেন সেটাকে পরিপাটি করে রাখাই হল আসলে স্টাইল।

বন্ধুরা এই প্রতিবেদনটি ভালো লাগলে অবশ্যই বন্ধুদের সঙ্গে শেয়ার করতে ভুলবেন না ধন্যবাদ।