ডায়াবেটিস রোগীরা কি ডাবের জল খেতে পারবে ?

ডায়াবেটিস রোগীরা কি ডাবের জল খেতে পারবে ? 

ডায়াবেটিস রোগীর জন্য বেশিরভাগ সুগারযুক্ত পানীয়ই খারাপ কারন সুগারযুক্ত পানীয়তে জল বাদে প্রধান উপাদান সুগার । ডাবের জলেও জল বাদে সব থেকে বেশি সুগারই থাকে । তাহলে কি ডায়াবেটিস রোগীর খাদ্যতালিকায় ডাবের জল রাখলে অন্যান্য সুগারযুক্ত পানীয়র মতো ব্লাড সুগার বাড়াবে ? 

এই ভিডিওতে আমরা আলোচনা করব ডায়াবেটিস ডায়েটে ডাবের জলা রাখা যাবে কিনা ? রাখা গেলে ডায়াবেটিস কমানোর উপায় হিসাবে দিনে কতটা ডাবের জল খাওয়া যেতে পারে ?  

ডায়াবেটিস রোগীর দিনে কতটা ডাবের জল খাওয়া উচিৎ ? 

A) এক গ্লাস B) দুই গ্লাস C) তিন গ্লাস D) এক গ্লাসও নয় 

এবার আলোচনায় আসা যাক তার আগে আপনি যদি Dr Biswas চ্যানল সাবস্ক্রাইব করে না থাকেন এখনই সাবস্ক্রাইব করে বেল আইকন অন করে দিন পরের ভিডিওগুলি ফ্রিতে পেয়ে যাবেন । 

এবার আলোচনায় আসা যাক – 

এক । ডাবের জল কি ব্লাড সুগার বাড়াবে ? – Diabetes control এ ডাবের জলের ভূমিকা – 

ডাবের জলের Glycemic index ও Glycemic load নিয়ে কোন তথ্য পাওয়া যায় না তাই আসুন ডাবের জলের উপাদান থেকে ডাবের জলের Glycemic index ও Glycemic load নিয়ে একটা ধারনা করা যাকে যাতে বুঝতে পারেন ডাবের জল খেলে কতটা ব্লাড সুগার বাড়বে । 

১০০ মিলি ডাবের জল থেকে আপনি ব্লাড সুগার বাড়ানোর কার্বোহাইড্রেট Net Carbohydrate পাবেন ২.৬০ গ্রাম , ফাইবার ১.১০ গ্রাম – তুলনামূলকভাবে ফাইবার কিন্তু বেশ বেশি । এছাড়া প্রোটিন থাকে ০.৭০ গ্রাম , ফ্যাট ০.২০ গ্রাম । ফাইবার , প্রোটিন , ফ্যাট মিলিয়ে ডাবের জলে থাকে ২ গ্রাম । মানে ডাবে সুগার বাড়ানোর উপাদান ২.৬০ গ্রাম আর সুগার কমানোর উপাদান ২ গ্রাম । 

উপাদান থেকে ধারণা করা যায় ডাবের জলের Glycemic index ৩০ থেকে ৪০ এর মধ্যে হবে , তাহলে ১০০ গ্রাম ডাবের জলের Glycemic load ০.৭৮ থেকে ১.১৫ । 

[আরো পড়ুন : কিডনি রোগের লক্ষণ ও চিকিৎসা ]

অর্থাৎ ডাবের জলের Glycemic load খুবই কম – ডাব জল খেয়ে আপনার ব্লাড সুগার বাড়ার সম্ভানা নেই । 

আসুন এবার দেখা যাক ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে ডাবের জলের ভূমিকা নিয়ে কোন গবেষণা আছে কিনা । 

ডাবের জল নিয়ে মানুষের উপর তেমন গবেষণা না হলেও ইঁদুরের উপর কিছু গবেষণা করা হয়েছে । 

২০১৫ তে ইঁদুরের উপর করা একটি গবেষণা থেকে দেখা যাচ্ছে ডাবের জল ব্লাড সুগার নিয়ন্ত্রণে রাখতে সাহায্য করে সাথে HbA1c level ও কম করে মানে ডাবের জলের দীর্ঘস্থায়ীভাবে ব্লাড সুগার কমানোর ক্ষমতা আছে । ২০২১ এর একটি গবেষণা থেকেও একই রকম তথ্য পাওয়া যায় । গবেষণা লিঙ্ক desceription এ আছে , ভিডিও শেষে দেখে নেবেন । 

ডাবের জল ডায়াবেটিস রোগীর খাদ্যতালিকায় একটি ভালো পানীয় । আপনি যদি টাটকা ডাবের জল খান ব্লাড সুগার বাড়ার তেমন কোন ভয় নেই । তারপরও ডায়াবেটিস কমানোর উপায় হিসাবে এক গ্লাসের বেশি ডাবের জল খাওয়া উচিৎ নয় । 

ডায়াবেটিস রোগীর ডাবের জল খাওয়ার সাবধানতা – 

অর্থাৎ ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে  টাটকা ডাবের জল ভালো পানীয়  – প্যাকেটজাত unsweetened ডাবের জলও খেতে পারেন – তবে কোন ক্ষেত্রেই যেন একগ্লাসের বেশি না হয় ।