প্রতিদিন কাঁচা রসূন খেলে কি ঘটবে আপনার শরীরে?

প্রতিদিন কাঁচা রসূন খেলে কি ঘটবে আপনার শরীরে?

রসূন আমাদের দৈনন্দিন খাবারের একটি গুরুত্বপূর্ণ উপাদান প্রাচীন ইতিহাস খতিয়ে দেখলে। জানতে পারবেন তখন কিন্তু শুধু বিভিন্ন অসুখ সারানোর জন্যই রসূন ব্যবহার হতো তখনকার ডাক্তারেরা স্বাস্থ্যের উন্নতির জন্য নিয়মিত রসুন খেতে বলতেন।

আধুনিক বিজ্ঞানের আরো চমকপ্রদ উপকারিতা আবিষ্কার করেছেন এর মেডিকেল প্রপার্টি সম্পর্কে জানলে রীতিমতো আপনার চোখ কপালে উঠবে। এটিকে একটি সুপার মেডিসিন হিসেবে আখ্যায়িত করেছে বিজ্ঞানীরা। আমাদের এই প্রতিবেদনে গুরুত্বপূর্ণ ৫টি উপকারিতা সম্পর্কে জানানো হবে এবং সেইসাথে জানবো কোন ধরনের রোশন আপনার শরীরের জন্য ভাল।

হ্যাঁ রসুনের মধ্যে এমন কিছু রসুন রয়েছে যেগুলো আমাদের উপকারের বদলে ক্ষতি করছে আর এগুলো কি আমাদের এড়িয়ে চলতে হবে। এবং সেই সাথে সবাইকে সাবধান করতে হবে এগুলো নিয়ে আলোচনা করার আগে জানবো রসুনের অতুলনীয় উপকারিতা সম্পর্কে।

১. রসুন উচ্চ রক্তচাপ কমাতে সাহায্য করে শরীরের এলডিএল বেড়ে যাওয়ার কারণে রক্তচাপ বেড়ে যায়। প্রতিদিন দুই কোয়া রসুন সকালে খালি পেটে খেলে উচ্চ রক্তচাপ জনিত সমস্যা থাকবে না। এছাড়াও রসুন খেলে রক্ত সঞ্চালন ক্ষমতা বৃদ্ধি পায় যার দরুন রক্ত বাধাগ্রস্ত হয়ে সব রোগের সৃষ্টি করে তা আর হতে পারবে না। 

২. নিয়মিত রসুন খাওয়া শুরু করলে দেহের অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি প্রপার্টিজের মাত্রা বাড়তে শুরু করে ফলে একদিকে যেমন নানাবিধ যন্ত্রণা কমে। তেমনি হাড়ের ক্ষয় হওয়ার আশঙ্কা হ্রাস পায় ফলে স্বাভাবিক বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে হারে রোগে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা কমে। জাপানের গবেষকরা এক গবেষণার ফল প্রকাশ করেছে যে রোশন হারে শক্তি বৃদ্ধি করে। 

৩.  রসুন ক্যান্সারের ঝুঁকি কমায় প্রতিদিন রসুন খেলে পাকস্থলী এবং কলোরেক্টাল ক্যান্সার এ আক্রান্ত হবার আশঙ্কা একেবারে কমে যায়। তাই যাদের পরিবারের এই ধরনের ক্যান্সারের ইতিহাস রয়েছে তারা রসুন খাওয়া কোনদিনও বন্ধ করবেন না। এছাড়াও রসুনের প্রচুর মাত্রায় অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট প্রপার্টিজ রয়েছে এই উপাদানটি একদিকে যেমন শরীরে উপস্থিত খারাপ কোলেস্টেরলের মাত্রা কমায়। তেমনি উচ্চরক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখে আরে একথা তো সবারই জানা আছে যে এই দুইটি জিনিস নিয়ন্ত্রণে থাকলে তো হার্টের স্বাস্থ্যের অবনতি ঘটার আশংকা একেবারেই থাকেনা। 

প্রতিদিন কাঁচা রসূন খেলে কি ঘটবে আপনার শরীরে?

৪. শরীরে সুন্দর করে। শরীরে উপস্থিত ক্ষতিকর উপাদান বা টক্সিনের ধরনের ত্বকে যাতে কোনো ধরনের ক্ষতি না হয় সেদিকে খেয়াল রাখে রসুন। সেইসঙ্গে কোলাজেনের মাত্রা স্বাভাবিক রাখার মধ্য দিয়ে ত্বকের সৌন্দর্য বৃদ্ধিতে বিশেষ ভূমিকা রাখে। এছাড়াও রসুনের রস চুলে লাগালে নতুন চুল গজাতে সাহায্য করে ।

৫. রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায় রসুনের ফাইটোনিউট্রিয়েন্ট যা দেহের আনাচে-কানাচে জমে থাকা ক্ষতিকর উপাদান বের করে দেয়। ফলে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা উন্নতি করতে সময় লাগে না আর একবার ইমিউন সিস্টেম শক্তিশালী হয়ে উঠলে একদিকে যেমন সংক্রমণে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা কমে। তেমনি ছোট-বড় কোন রোগে ধারেকাছে আসতে পারে না।

 অনেকের মনে প্রশ্ন থাকে রসুন কাঁচা খাবো নাকি সিদ্ধ করে খাব। এই ক্ষেত্রে গবেষকরা মনে করেন রান্না করে খেলে এর গুনাগুন অনেকটাই নষ্ট হয়ে যায় তাই কাচ রসুন খেলে কয়েক গুণ বেশি উপকার পাবেন। তবে যাদের রসুন খাওয়ার ফলে এলার্জি হবার আশঙ্কা রয়েছে বা হয় তারা অবশ্যই কাঁচা রসুন খাওয়া থেকে বিরত থাকুন। 

এখন চলুন জেনে নেই কোন ধরনের রসুন রান্নায় কিংবা কাচা খেলে আমাদের উপকারের বদলে ক্ষতি হতে পারে। গোটা বিশ্বে যত ধরনের রসুন বিক্রি হয় তার ৮০ ভাগের যোগানদাতা চীন দেশের। কিন্তু এই চীনা রসুন স্বাস্থ্যের পক্ষে একেবারেই ভালো নয় বলে সম্প্রতি দাবি করেছেন গবেষকরা। এক গবেষণার উৎপাদিত হয় তার মধ্যে বিষাক্ত রাসায়নিক পাওয়া গিয়েছে। 

আরো পড়ুন২মিনিটে ঘুমিয়ে পড়ার মিলিটারিতে ব্যবহৃত কিছু টেকনিক

সুনের রয়েছে বেশি মাত্রায় মিথাইল ব্রোমাইড এছাড়া রয়েছে সে সাহস al-fitr। যা ক্যান্সারের ঝুঁকি অনেকটাই বাড়িয়ে তোলে এমনকি শরীরের শ্বাসতন্ত্র ও কেন্দ্রীয় স্নায়ুতন্ত্র সমস্যা দেখা যায়। চীনা রসুনে শুধু তাই নয় মানব শরীরের রেস্পিরেটরি ও সেন্ট্রাল নার্ভাস সিস্টেমকে ক্ষতিগ্রস্থ করে এই চীনা রসুন। রসুন ক্রেতাদের কাছে আকর্ষণীয় করে তুলতে ক্লোরিন ব্লিচ করা হয় মূলত রোশনের গায়ের কালো ছোপ দূর করার ক্ষেত্রে ব্লিচ করা হয়। 

আর এটাই মারাত্মক ক্ষতি করে শরীরের তাই সব চীনা রসুন খাওয়া থেকে বিরত থাকতে হবে। এখন চলুন জেনে নেই চীনা রসুন কিভাবে চিনবেন রসুন চেনার উপায় হলো ঝকঝকে তারবিহীন রোশন এড়িয়ে চলুন । কারণ রসুনে ব্লিচ করার ফলে দাগ বিহীন হয় ওজনেও খুব হালকা হয় রপ্তানি খরচ কম করার জন্য রসুন থেকে জল বের করে দেয়া হয়। তাছাড়া চীনা রসুনে শিকর থাকেনা। খাবারের জন্য যেটা আমরা করতে পারি তাহলে দেশি রসুন খেতে পারি। এটি আমাদের শরীরের জন্য কোনো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া ছাড়াই অনেক উপকারী।

বন্ধুরা এই প্রতিবেদনটি ভালো লাগলে অবশ্যই বন্ধুদের সঙ্গে শেয়ার করতে ভুলবেন না ধন্যবাদ।