মেয়েদের মন পাওয়ার সাইকোলজিক্যাল ট্রিক্স

মেয়েদের মন পাওয়ার সাইকোলজিক্যাল ট্রিক্স

মেয়েদের মন পাওয়ার সাইকোলজিক্যাল ট্রিক্স” অনেকেই বলে বীরবিক্রম এরা হারিয়ে গেছে। এমনকি এখনকার যুগের আধুনিক মেয়েরা মনে করে এটা শুধু বইয়ের গল্পের নাটকে বা সিনেমাতেই সম্ভব এটি অবশ্যই সত্য নয়।

হ্যা এখনকার দিনে আপনি হয়তো কোথাও তীর-ধনুক তলোয়ার হাতে নিয়ে বীর পুরুষ কে খুঁজে পাবেন না। কিন্তু বর্তমানে সত্তিকারের পুরুষ হওয়ার জন্য বীরবিক্রম হতে হয়না।

আমাদের মধ্যে অনেক সত্যি কারের হিরোকে পাওয়া যায় যারা মেয়েদের হার্ট বিট কে এক মুহূর্তেই বাড়িয়ে দিতে পারে।

আর এর জন্য তাকে যুদ্ধক্ষেত্রে নিজের বীরত্ব দেখাতে হবে না শুধুমাত্র কিছু সাধারণ গোপন বিষয় মেনে চললেই আপনি অসাধারণ ১০ জন পুরুষের থেকে হয়ে উঠবেন বিশেষ কেউ।

এবং মুহূর্তের মধ্যেই আপনার কাঙ্খিত নারীর মন জয় করে নিতে পারবেন। আজকের এই টিপস গুলো একজন ছেলের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ তবে অবশ্যই মনে রাখবেন এগুলো অতিরিক্ত করা যাবে না।

: tips 10

দরজা খুলে দেয়া কোথাও প্রবেশের সময় তার জন্য নিজ হাতে দরজা খুলে দিলে কি হয়। এতে তারা ধরে নেয় আপনিও অলস নন বরং চটপটে যত্নশীল এবং ভদ্র সভাবের।

আপনার জেনে রাখা ভালো যে এতে আপনার গার্লফ্রেন্ড আপনার সাথে নিরাপদ এবং স্বাচ্ছন্দ্যবোধ মনে করে থাকে। এটা আপনার কাছে প্রথমে খুব সামান্য বিষয় মনে হলেও দিনকেদিন সে এটাকে অনেক উপভোগ করা শুরু করবে।

: tips 9

আপনার শেষে খাবারটুকু নিজের হাতে তাকে খাইয়ে দিন। হয়তো বেশিরভাগ ছেলেরাই নিজের খাবারের ওপর কেউ ভাগ বসাক এটাও অপছন্দ করে মেয়েদের বেলায় আরো বেশি হয়ে থাকে।

কিন্তু খাওয়ার শেষ সময় আপনি আপনার খাওয়া বন্ধ করে যদি তাকে খাইয়ে দেন তাহলে ওই সময় সে নিজেকে অনেক বেশি সুখী মনে করতে থাকে।

এটা তাঁর প্রতি আপনার এসপেশাল কেয়ার হিসেবে বিবেচিত হয় এবং সাথে সত্তিকারের ভালোবাসার সংকেত মনে করা হয়।

: tips 8

তার পরিবারকে সময় দিন মেয়েরা খুব আবেগপ্রবণ তারা সব সময় পরিবার-পরিজন নিয়ে থাকতে ভালবাসে।

তাই আপনার প্রিয় মানুষটির পরিবারের প্রতি খেয়াল রাখুন খোঁজখবর নিন। রিলেশনের সবচেয়ে ভয়ঙ্কর মুহূর্ত গুলোর মধ্যে একটি হচ্ছে তার বাবা মার সাথে দেখা করা।

সুতরাং এই সময়টাতে যদি আপনি আগ্রহ দেখাতে পারেন এবং তার পরিবারের কাছে প্রিয় হতে পারেন তবে কেল্লাফতে সে আপনাকে অন্ধের মত ভালবাসতে শুরু করবে।

[ আরো পড়ুন ধূমপান ছেড়ে দিলে কি পরিবর্তন ঘটবে আপনার শরীরে]

: tips 7

তাকে আপনার বন্ধুদের সাথে পরিচয় করিয়ে দিন একজন সত্যিকারের পুরুষ অবশ্যই জেনে থাকবেন যে যখন কেউ তার বন্ধুদের সামনে তার গার্লফ্রেন্ডের পরিচয় লুকায়।

এবং গর্বের সাথে পরিচয় করিয়ে দিতে না পারে তবে ওই অভাগা মেয়েটি নিজেকে অনেক অগ্রজের পাত্রী এবং নিজেকে অনেক ছোট মনে করতে থাকে।

একজন সত্যিকারের প্রেমিক কখনোই এই মুহূর্তেকে আসতে দেয় না এবং তারা সব সময় তাঁর প্রিয়তমকে সবার প্রথমে তার বন্ধুদের সাথে পরিচয় করিয়ে দেয় এবং সামনে তার বেশ কিছু প্রশংসা করে থাকে।

আর মেয়েটি তার কাছে কতটা গুরুত্বপূর্ণ সেটিও জানান দিতে ভুল করে না মনে রাখবেন এটা করলে সে আপনাকে তার জীবনের অনেক বড় একটা অংশ মনে করতে শুরু করবে।

মেয়েদের মন পাওয়ার সাইকোলজিক্যাল ট্রিক্স

: tips 6

কোন কারন ছাড়াই গিফট পাঠান। ভুল বুঝবেন না আমি আপনাকে পকেট ফাঁকা করার বুদ্ধি দিচ্ছিনা মেয়েরা উপহার পেতে পছন্দ করেন।

তবে এটা ঠিক নয় যে তারা সব সময় দামি উপহার পেতে পছন্দ করেন শুধু খেয়াল রাখবেন যেন সারপ্রাইজ হয় ছোট গিফট এর মাধ্যমে অনেক বড় সারপ্রাইজ দেয়া যায়। একবার ভাবুনতো প্রিয় মানুষের কাছ থেকে উপহার পেলে কতই না খুশি হবে।

এতে আপনি তাকে কম সময় দিলেও সে মনে করবে আপনি তাকে মোটেও ভুলে যাননি। আর আপনি যদি তাদের মধ্যে একজন হন যারা উপহার পাওয়ার থেকে উপহার দিতে পছন্দ করেন।

তাহলে আপনি অবশ্যই আর দশজনের থেকে ভাগ্যবান পুরুষ সুতরাং ফেরার পথে মাত্র একটি গোলাপ সঙ্গে নিয়ে নিন আর উপভোগ করুন তার উচ্ছ্বসিত হাসিমুখ।

: tips 5

সব সময় তাকে আগলে রাখুন। চলার পথে এমন অনেক ছোট ছোট বিষয় আছে যেগুলো থেকে তাকে একটু সাবধান করে দিন।

রাস্তা পার হওয়ার সময় তার হাত ধরে পারকরুন বৃষ্টিতে তার মাথায় ছাতা ধরো কেউ তাকে বিরক্ত করলে তাকে প্রতিহত করুন এগুলো আপনাদের রিলেশনশিপ কে মজবুত করার জন্য একটা ইটের গাথুনির মত কাজ করবে।

: tips 4

তার কপালে চুমু খান গবেষণায় পাওয়া যায় মেয়েরা তাদের কপালে চুমু খেতে পছন্দ করে। গবেষণায় এটা প্রমাণ করে যে কপালে চুমু খালে মেয়েরা আদর ভালোবাসা এবং সম্মান এর প্রতীক হিসেবে দেখেন।

সচরাচর ঠোটে কিস করার থেকে কপালে কিস করলে মেয়েরা অনেক বেশি খুশি হয়।

[আরো পড়ুন : উজ্জ্বল ত্বক পেতে হলুদ ফেস প্যাক ]

: tips 3

বিল পরিশোধ করুন এটা বলার অপেক্ষা রাখেনা যে ছেলেরাই সব বিল পরিশোধ করে থাকে বিশেষ করে টরেন্টের বিল।

তারপরেও যে যত আন্তরিকতার সাথে এই কাজটি করে থাকে তার প্রতি মেয়েদের আগ্রহ বেশি বেড়ে যায় তবে অবশ্যই আপনাকে অনেক বেশি কৌশলী হতে হবে।

: tips 2

প্রিয় মানুষটির কাছে ভালোবাসার অন্যতম শর্ত হলো। প্রিয় মানুষটির কাছে সৎ থাকা তার কাছে কোনো কিছুই গোপন করা যাবে না আর এই ছোট বিষয়টি আপনার আত্মবিশ্বাস বাড়াতে অনেক সাহায্য করবে।

সেই সাথে আপনার উপর প্রিয় মানুষের আস্থা বাড়বে এবং অবশেষে।

: tips 1

তার কথা মনোযোগ দিয়ে শুনুন সম্ভবত এই একটি কাজই ছেলেদের কাছে সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ এর বিষয় যে একটি মেয়ের কথা মনোযোগ সহকারে সোনা।

অবশ্যই বেশিরভাগ সময় তার কথা আপনার কাছে কম গুরুত্বপূর্ণ মনে হতে পারে। তবে এই জায়গাটায় এসে আপনার কিছু ধৈর্য ইনভেস্ট করতে হবে। মনে রাখবেন ভালোবাসা এমনিতে আসে না ভালোবাসা পেতে হলে আগে ভালোবাসা দিতে হয়।

প্রেম-ভালোবাসা হল সুন্দরের আরাধনা। নারীর মন বুঝতে হলে নারীর সঙ্গে ওই ধরনের আচরণ করুন যেটা সে পছন্দ করে তাহলেই দেখবেন সে আপনার প্রতি ভালোবাসায় বিগলিত হয়ে গেছে।

বন্ধুরা আপনারা মনে হয় আমার কথা বুঝতে পেরেছেন তবে আর দেরি কেন একটা একটা করে বাস্তবায়ন করা শুরু করুন আর কারো সাথে কোন অভিজ্ঞতা থেকে থাকে তবে কমেন্টে আমাকে অবশ্যই জানাবেন ধন্যবাদ।